ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচনা – Ishwar Chandra Vidyasagar Essay in Bengali

0
91

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচনা – Ishwar Chandra Vidyasagar Essay in Bengali : ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর যিনি ঈশ্বরচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় নামেও পরিচিত, একজন ভারতীয় শিক্ষাবিদ এবং সমাজ সংস্কারক ছিলেন। কিছু বাংলা গদ্যকে সরলীকরণ ও আধুনিকীকরণে তিনি চমৎকার কাজ করেছেন। তিনি বাংলা বর্ণমালা ও প্রকারের যৌক্তিককরণেও অবদান রেখেছিলেন যা পরিবর্তন করা হয়নি যেহেতু চার্লস উইলকিন্স এবং পঞ্চানন কর্মকার প্রথম বাংলা টাইপ কাটাতে জড়িত ছিলেন। সারাজীবন এই অবদানের কারণে তাকে “বাংলা গদ্যের জনক” বলা হয়। তিনি হিন্দু পুনর্বিবাহের প্রচারকও ছিলেন, যার জন্য তিনি আদালতে আবেদনও করেছিলেন।

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচনা – Ishwar Chandra Vidyasagar Essay in Bengali

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচনা

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের উপর দীর্ঘ রচনা সাধারণত 7, 8, 9 এবং 10 শ্রেণীতে দেওয়া হয়।

ভূমিকা

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর একজন মহান প্রভাবশালী ছিলেন এবং তাঁর আশেপাশে থাকা অনেক লোককে অনুপ্রাণিত করেছিলেন এবং সারা জীবন তাঁকে অনুসরণ করেছিলেন। তিনি বুদ্ধিজীবী ছিলেন এবং তাঁর প্রচুর জ্ঞান ছিল যা তিনি জাতির উন্নতি ও উন্নয়নের জন্য ব্যবহার করেছিলেন। তিনি কিছু ভারতীয় আচার-অনুষ্ঠানের বিরুদ্ধে ছিলেন যা মানুষকে আঘাত করে এবং সমাজের বিভিন্ন রীতিনীতি পরিবর্তন করার চেষ্টা করে। ভারতীয় আচার-অনুষ্ঠানের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর জন্য তিনি যে সমালোচনা পেয়েছেন তা কখনোই তাকে প্রভাবিত করেনি এবং তিনি তার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

প্রাথমিক জীবনের অসুবিধা

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর বাংলার এক দরিদ্র পরিবারের সদস্য ছিলেন। তিনি ভাগ্যবান যে পিতামাতারা শিক্ষার গুরুত্ব জানতেন। তাকে তার বাবা-মা একটি স্কুলে ভর্তি করান। তিনি পড়াশোনার প্রতি এতটাই অনুরাগী ছিলেন যে তিনি রাস্তার বাতির নীচে পড়াশোনা করতেন কারণ তার বাবা-মা তার জন্য গ্যাসের বাতি দেওয়ার সামর্থ্য ছিল না। ঈশ্বরের জীবনে শিক্ষা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।

তিনি শুধু পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার জন্যই পড়াশোনা করেননি বরং তার চারপাশের বিভিন্ন বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করতেন। আর্থিক অবস্থার কারণে এক জায়গায় চাকরি করতেন। সারাদিন কাজ করার পর রাতে পড়াশোনার জন্য সময় বের করেন।

একজন ভালো এবং উজ্জ্বল ছাত্র

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর স্কুলজীবনে মেধাবী ছিলেন। তিনি নতুন জিনিস শিখতে আগ্রহী ছিলেন যেখানে অন্যান্য ছাত্ররা তাদের দিনের বেশিরভাগ সময় খেলত। তিনি বেশিরভাগ সময় বিভিন্ন বই পড়তেন। তিনি অত্যন্ত একাগ্রতার সাথে আবেগের সাথে সবকিছু অধ্যয়ন করেছিলেন যার কারণে তিনি তার পরীক্ষায় ভাল করেছেন। তার পারফরম্যান্সের কারণে তাকে অনেক বৃত্তি দেওয়া হয়েছিল। তিনি তার শিক্ষাজীবন জুড়ে নিষ্ঠার সাথে ভালভাবে পড়াশোনা চালিয়ে যান।

তিনি একটি সংস্কৃত কলেজে ভর্তি হন এবং সীমিত সম্পদ থাকা সত্ত্বেও অনেক কিছু শিখেছিলেন। এটি দেখায় যে তিনি তার পড়াশোনার বিষয়ে কতটা উত্সাহী এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষী ছিলেন।

পেশাগত ভ্রমণ

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর তার পেশাগত জীবনে কিছু মর্যাদাপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেছেন। তিনি ফোর্ট উইলিয়ামস কলেজের সংস্কৃত বিভাগের প্রধান হিসেবে নিযুক্ত হন। এখানে কয়েক বছর কাজ করার পর তিনি সরকারি সংস্কৃত বিদ্যালয়ে সহকারী সচিব হিসেবে নিযুক্ত হন। এই প্রতিষ্ঠানে তার মেয়াদকালে, তিনি অনেকগুলি মূল পরিবর্তন আনেন যা শিক্ষার্থীদের একাডেমিকভাবে উন্নতি করতে সাহায্য করেছিল।

একজন সমাজ সংস্কারক

ঈশ্বরচন্দ্র একজন সুশিক্ষিত মানুষ ছিলেন তাই তিনি একটি ভালো চাকরি পেয়েছিলেন। এই চাকরির মাধ্যমে তিনি অন্যের কথা না ভেবে বিশ্রাম ও বিলাসবহুল জীবনযাপন করতে পারতেন। কিন্তু তিনি সমাজের উন্নয়ন এবং পুরানো নিয়মগুলি পরিবর্তন করতে বেছে নিয়েছিলেন যা অনেক লোককে বিরক্ত করছে। তিনি যে প্রধান সমস্যাটি সংশোধন করতে চেয়েছিলেন তা হ’ল আমাদের সমাজে মহিলাদের সাথে কীভাবে আচরণ করা হয়। নারীদের সম্মানজনক মর্যাদা দিতে তিনি কঠোর পরিশ্রম করেছেন। তিনি মেয়েশিশু শিক্ষার প্রচারের জন্য অনেক স্কুলও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন যা তখন ভারতে নিষিদ্ধ ছিল।

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের জীবন থেকে অনেক কিছু শেখার আছে কারণ তিনি সত্যিই অনুপ্রেরণাদায়ক। সীমিত সূত্রে তিনি যেভাবে পড়াশোনা ও শিক্ষিত করতে পেরেছিলেন তা প্রশংসনীয় ছিল। একমাত্র জিনিস যা তাকে এই সমস্ত কষ্টের মধ্য দিয়ে যেতে সাহায্য করেছিল তা হল উত্সর্গ। পড়ালেখার পাশাপাশি পরিবারের ভরণপোষণের জন্য একটি জায়গায় কাজ করতেন এবং উচ্চশিক্ষার জন্য কিছু অর্থও সঞ্চয় করতেন। এই সবের সাথে, তিনি সমাজের জন্য কাজ করতে এবং এটিকে বসবাসের জন্য একটি ভাল জায়গা তৈরি করার জন্য এটিকে বিকাশ করতেও পরিচালনা করেছিলেন।

উপসংহার

তো বন্ধুরা আশাকরছি যে আপনার আমাদের ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচনা – Ishwar Chandra Vidyasagar Essay in Bengali এই আর্টিকেলে টি পছন্দ হয়েছে। আপনার যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে আপনার বন্ধু এবং প্রিয়জন দেড় সাথে শেয়ার করুন। ধন্যবাদ!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here