স্বাধীনতা দিবস রচনা – Independence Day Essay in Bengali

0
176

স্বাধীনতা দিবস রচনা – Independence Day Essay in Bengali : ভারত প্রতি বছর 15ই আগস্ট তার স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করে। স্বাধীনতা দিবস আমাদের সেই সমস্ত আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করিয়ে দেয় যা আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামীরা ব্রিটিশ শাসন থেকে ভারতকে মুক্ত করতে দিয়েছিলেন। 15ই আগস্ট 1947-এ, ভারতকে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিকতা থেকে স্বাধীন ঘোষণা করা হয় এবং বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রে পরিণত হয়। স্বাধীনতা দিবসের এই রচনাটিতে, শিক্ষার্থীরা ভারতের স্বাধীনতার ইতিহাসের সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ বিবরণ খুঁজে পাবে। তারা তাদের পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য এটি উল্লেখ করতে পারে কারণ প্রবন্ধগুলি বেশিরভাগই CBSE ইংরেজি পত্রে জিজ্ঞাসা করা হয়। এছাড়াও, তারা এই প্রবন্ধটিকে স্কুলে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানের বক্তৃতা হিসাবে ব্যবহার করতে পারে।

স্বাধীনতা দিবস রচনা – Independence Day Essay in Bengali

স্বাধীনতা দিবস রচনা

পতাকা উত্তোলন, কুচকাওয়াজ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে 15ই আগস্ট একটি জাতীয় উৎসব হিসেবে পালিত হয়।

স্কুল, কলেজ, অফিস, সোসাইটি কমপ্লেক্স, সরকারী এবং বেসরকারী সংস্থাগুলি অনুষ্ঠান পরিচালনা করে এবং এই দিনটি অত্যন্ত উত্সাহের সাথে উদযাপন করে। এই দিনে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী লাল কেল্লায় পতাকা উত্তোলন করেন এবং ভাষণ দিয়ে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন। দূরদর্শন পুরো অনুষ্ঠানটি টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার করে। প্রধানমন্ত্রী পন্ডিত জওহরলাল নেহেরু 15ই আগস্ট 1947-এ প্রথম পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠান করেছিলেন।

স্বাধীনতা দিবসের ইতিহাস

ব্রিটিশরা ভারতে প্রায় 200 বছর ধরে রাজত্ব করেছে। ব্রিটিশ শাসনামলে মানুষের জীবন ছিল দুর্বিষহ। ভারতীয়দের সাথে দাস হিসাবে ব্যবহার করা হত এবং তাদের কিছু বলার অধিকার ছিল না। ভারতীয় শাসকরা ছিল ব্রিটিশ অফিসারদের হাতের পুতুল। ব্রিটিশ শিবিরে ভারতীয় সৈন্যদের সাথে অমানবিক আচরণ করা হয়েছিল, এবং কৃষকরা অনাহারে মারা যাচ্ছিল কারণ তারা ফসল ফলাতে পারেনি এবং ভারী জমির কর দিতে হয়েছিল।

আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামীরা ভারতের স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম করেছেন। মহাত্মা গান্ধী, সুভাষ চন্দ্র বসু, ভগত সিং, সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল, জওহরলাল নেহেরু, রানি লক্ষ্মী বাই, মঙ্গল পান্ডে, দাদা ভাই নওরোজির মতো বিখ্যাত নেতারা ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে নির্ভীকভাবে লড়াই করেছিলেন। ভারতকে বৃটিশ শাসন থেকে মুক্ত করার জন্য তাদের অনেকেই জীবন উৎসর্গ করেছেন। তাদের অবদান ও প্রচেষ্টা ভারতের স্বাধীনতা ইতিহাসে স্মরণীয়।

কেন আমরা স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করি?

বহু বছর সংগ্রামের পর ভারত স্বাধীনতা লাভ করে। ভারত ব্রিটিশদের কাছ থেকে সম্পূর্ণ স্বাধীনতা লাভ করে এবং 1947 সালের 15ই আগস্ট পূর্ণ স্বায়ত্তশাসন লাভ করে। তাই ভারতে বা বিদেশে বসবাসকারী প্রতিটি ভারতীয় নাগরিকের হৃদয়ে এই দিনটির গুরুত্ব রয়েছে। 15ই আগস্ট 2020-এ ভারত স্বাধীনতার 73 বছর পূর্ণ করেছে। এই দিনটি আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামীদের সংগ্রাম এবং স্বাধীনতা অর্জনের জন্য তাদের আত্মত্যাগের কথাও স্মরণ করিয়ে দেয়। আমাদের বীরেরা যে বেদনার মধ্য দিয়ে গেছেন তা আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে আজ আমরা যে স্বাধীনতা উপভোগ করেছি তা লাখো মানুষের রক্ত ​​ঝরিয়ে অর্জিত হয়েছে। এটি ভারতের প্রতিটি নাগরিকের মধ্যে দেশপ্রেমের অনুভূতি জাগ্রত করে। এটি বর্তমান প্রজন্মকে তৎকালীন জনগণের সংগ্রামকে নিবিড়ভাবে উপলব্ধি করতে এবং ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামীদের সাথে পরিচিত করে তোলে।

স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য

স্বাধীনতা দিবস মানুষের মধ্যে দেশপ্রেমের অনুভূতি জাগায়। এটি জনগণকে একত্রিত করে এবং তাদের অনুভব করে যে আমরা অনেকগুলি ভিন্ন ভাষা, ধর্ম এবং সাংস্কৃতিক মূল্যবোধের সাথে এক জাতি। বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্যই ভারতের মূল সার ও শক্তি। আমরা বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশের অংশ হতে পেরে গর্বিত বোধ করি, যেখানে ক্ষমতা সাধারণ মানুষের হাতে।

স্বাধীনতা দিবস রচনা সম্পর্কিত প্রায়শ জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

স্বাধীনতা মানে কি?
স্বাধীনতা মানে কোনো নিয়ন্ত্রণ বা প্রভাব ছাড়া যেকোনো ধরনের কর্মের স্বাধীনতা।

আমাদের দেশ ভারত কখন তার স্বাধীনতা উদযাপন করে?
1947 সালের 15ই আগস্ট ভারতকে একটি স্বাধীন দেশ হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল।

ভারতের কয়েকজন স্বাধীনতা সংগ্রামীর নাম বলুন?
1. মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী 2. নেতাজি সুবাস চন্দ্র বসু 3. ভগত সিং 4. সরোজিনী নাইডু 5. রানী লক্ষ্মীবাই

উপসংহার

তো বন্ধুরা আশাকরছি যে আপনার আমাদের স্বাধীনতা দিবস রচনা – Independence Day Essay in Bengali এই আর্টিকেলে টি পছন্দ হয়েছে। আপনার যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে আপনার বন্ধু এবং প্রিয়জন দেড় সাথে শেয়ার করুন। ধন্যবাদ!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here